গোমস্তাপুরে আহত এক ব্যক্তির চিকিৎসার দায়িত্ব নিলেন জেলা প্রশাসক মোঃ মঞ্জুরুল হাফিজ

গোমস্তাপুর (চাঁপাইনবাবগঞ্জ) প্রতিনিধি: গোমস্তাপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় আহত এক ব্যক্তি’র (মুচি) চিকিৎসার দায়িত্ব নিলেন চাঁপাইনবাবগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোঃ মঞ্জুরুল হাফিজ। বৃহস্পতিবার রাতে জেলা প্রশাসকের নির্দেশে তার উন্নত চিকিৎসার জন্য চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। আহত ব্যক্তি উপজেলার রহনপুর ইউনিয়নের বংপুরস্থ খাড়িপাতা গ্রামের শ্রী দেবেন চন্দ্র দাসের ছেলে শ্রী বিরেন চন্দ্র দাস (৪০)। পেশায় তিনি একজন মুচি।
আহত শ্রী বিরেন চন্দ্র দাস বলেন, গত বৃহস্পতিবার (১০ জুন) সন্ধ্যায় রহনপুর ইউনিয়নের বংপুর বাজারে তিনি চা খেয়ে ভ্যানযোগে বাড়ির ফিরছিলেন। পথিমধ্যে ভ্যান চালক একটি ছাগলকে বাঁচাতে গিয়ে ভ্যানটি রাস্তার পাশে উল্টে যায়। এলাকাবাসী দ্রুত ভ্যানসহ তাকে উদ্ধার করে। পরে গোমস্তাপুর উপজেলা ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা ঘটনাস্থলে এসে আহতাবস্থায় তাকে উদ্ধার করে গোমস্তাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক পায়ের গোড়ালী ভেঙ্গে থাকায় তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করেন।
এদিকে আহত শ্রী বিরেনের স্ত্রী মিতালী দাস বলেন, তার স্বামী একজন মুচি। প্রতিদিন যে আয় করেন তাতে কোন মতে সংসার চলে। রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসার কথা শুনে তিনি ওই সময় হাসপাতালে জরুরী সেবা কক্ষে কান্নায় জড়িয়ে পড়েন। এ্যাম্বুলেন্স ভাড়া ও চিকিৎসার খরচ বহনের টাকা নেই। তিনি ওই সময় একেবারেই দিশেহারা হয়ে পড়েন। কিভাবে তার স্বামীর চিকিৎসা করাবেন তার দুঃচিন্তায় আরো উচ্চসরে কাঁদতে থাকেন। এমন সময় স্থানীয় এক সাংবাদিক বিষয়টি জেনে জেলা প্রশাসক মোঃ মঞ্জুরুল হাফিজকে ঘটনাটি অবহিত করেন। তাৎক্ষণিক জেলা প্রশাসক আহত ওই ব্যক্তির উন্নত চিকিৎসার জন্য সদর হাসপাতালে ভর্তির নির্দেশ দেন। তার চিকিৎসার ব্যয় জেলা প্রশাসক বহন করবেন বলে সাংবাদিককে জানান।
হাসপাতালে আহত ব্যক্তির সাথে থাকা আতœীয় (ভাইরা) প্রদীপ কুমার দাশ বলেন, হাসপাতালের সরকারি এ্যাম্বুলেন্স করে রাত ১২টার সময় চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর হাসপাতালে পৌঁছে জেলা প্রশাসক স্যারকে বিষয়টি জানায়। ওই রাতে জেলা প্রশাসক স্যারের লোক এসে তার ভাইরা আহত শ্রী বিরেন চন্দ্র দাসকে হাসপাতালে ভর্তি করেন। তিনি আরও জানান, স্যার (জেলা প্রশাসক) শুক্রবার তার চিকিৎসার খোঁজখবর নিয়েছেন।
এদিকে শুক্রবার বিকেল তিনটার দিকে মুঠেফোনে প্রদীপ জানান, আহত শ্রী বিরেন দাসের প্রাথমিক চিকিৎসা চলছে। তবে সাপ্তাহিক ছুটিতে হাসপাতালে চিকিৎসক না থাকায় সঠিক চিকিৎসাতে বিলম্ব হচ্ছে। এ সময় তিনি জেলা প্রশাসকের মহানুভবতায় তারা মুগ্ধ বলে তিনি জানান। এ ছাড়া সাংবাদিকদের প্রতি কৃতজ্ঞ প্রকাশ করেন।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *