মোহনপুরে বাড়ছে ডায়রিয়া প্রাদুর্ভাব, বেশিভাই রোগী শিশু

মোহনপুর (রাজশাহী)প্রতিনিধি : রাজশাহীর মোহনপুরে অতিরিক্ত তাপমাত্রা ও গরমে ডায়রিয়ার প্রাদুর্ভাব বেড়েছে। এতে শিশু ও বৃদ্ধরা আক্রান্ত হচ্ছে বেশি। এ কারণে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ডায়রিয়া রোগীদের চাপ দেখা গিয়েছে। ওয়ার্ডগুলোতে রোগীদের কয়েকদিন ভর্তি থেকে চিকিৎসা সেবা নিতে হচ্ছে। রোগীর অাত্মীয় স্বজনেরা জানান, স্যালাইন ছাড়া অন্যান্য ওষুধ চাহিদামত পাচ্ছেন না। তাই বাহির থেকে ওষুধ কিনতে অনেকের সমস্যা হচ্ছে।

মোহনপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সূত্রে জানা গেছে, গত ১০ দিনে ৬৬ জন ডায়রিয়া রোগী ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিয়েছেন। আক্রান্তদের মধ্যে শিশু ও বয়স্ক রোগীর সংখ্যা বেশি। বতমানে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ১২ ডায়রিয়া রোগী চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

রোগীর স্বজনরা জানান, অতিরিক্ত গরমে ডায়রিয়ার প্রকোপ দেখা দিয়েছে বেশি। এ কারণে তারা হাসপাতালে তাদের রোগীদেরকে ভর্তি রেখে চিকিৎসা দিচ্ছেন। ডায়রিয়ার সাথে জ্বর ও বমিও রয়েছে এবং বার বার পাতলা পায়খানা হওয়ায় তারা রোগীদের নিয়ে চিন্তিত রয়েছেন। তবে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ রোগীদের চিকিৎসা দিচ্ছে।

ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে গত বুধবার রাত থেকে ভর্তি চিকিৎসা নিচ্ছেন উপজেলার কেশরহাট পৌর সভার বরিঠা  গ্রামের মাইনুল ইসলামের দুই শিশু সন্তান মহিন ইসলাম তালহা (৪), তাসকিন ইসলাম জামাল (২)। তিনি জানান, বেশ কয়েক দিন ধরে পাতলা পায়খানা শুরু হয়। গত বুধবার রাতে বেশি হলে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করান। চিকিৎসা সেবা ও ওষুধ    ঠিকমত পাচ্ছেন কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, স্যালাইন ছাড়া অন্যান্য সকল ওষুধ বাহির থেকে কিনতে হচ্ছে। এমন অভিযোগ করলেন পাশের বেডে চিকিৎসাধীন থাকা ১৫ মাস বয়সী শিশু তাহার মা ফিরোজা বেগম।
স্যালাইন ছাড়া অন্যান্য ওষুধ চাহিদামত না থাকায় গরীব রোগীদের বাইরে থেকে ওষুধ কিনতে অনেক কষ্ট হচ্ছে।
মোহনপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অাবাসিক অফিসার ডাক্তার মোঃ রাশেদুল ইসলাম জানান, তাপদাহ ফুডপয়জনিং ও বিশুদ্ধ পানির অভাবের আক্রান্ত হচ্ছে। শিশুদের আক্রান্ত বিষয়ে তিনি বলেন, শিশুদের পরিষ্কার না রাখার কারণে শিশুরাই বেশি আক্রান্ত হচ্ছে। তবে সিজনে যেভাবে বাড়ার কথা সেভাবে বাড়েনি। কন্ট্রোলের মধ্যে আছে এখনো। বর্তমানে তাদের সাধ্যের মধ্যে চিকিৎসা সেবা দেয়া হচ্ছো রোগীদের। স্যালাইন ছাড়া অন্যান্য ওষুধ চাহিদা পাচ্ছেন না রোগী জানতে চাইলে তিনি বলেন, সামনে বাজেট তাই সরবরাহ কম থাকায় সামন্য সমস্যা হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *