রেলওয়ে পশ্চিমাঞ্চলে  ১৯টি ট্রেনের রেক ট্রায়াল রান শুরু

আবুল কালাম আজাদ:- লকডাউনের কারণে দ্বিতীয় দফায় টানা ২৮ দিন ট্রেন চলাচল বন্ধ রয়েছে। রেলওয়ের প্রশাসনিক নির্দেশনা পেলে যেকোনো সময় শুরু হবে ট্রেন চলাচল।
ট্রেন চালু শুরু হলে সুষ্ঠুভাবে ট্রেন পরিচালনার স্বার্থেই পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের পাকশি বিভাগীয় রেলওয়ের ১৯টি আন্তঃনগর ট্রেনের রেকগুলোর ট্রায়াল রান সোমবার (৩ মে) পাকশি রেলওয়ে দফতর শুরু করতে যাচ্ছে।
সোমবার ও মঙ্গলবার সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের রাজশাহী-ঈশ্বরদী-খুলনা রেলওয়ে স্টেশন থেকে ট্রায়াল রান করবে।
রোববার (২ মে) রাত সাড়ে ১১টায় পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের পাকশি বিভাগীয় কর্মকর্তা (ডিটিও) আনোয়ার হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করেন।
সোমবার (৩ মে) সকাল ১০টায় খুলনা থেকে নওয়াপাড়া পর্যন্ত ৭২৫/৭২৬ নম্বর সুন্দরবন এক্সপ্রেস, রাজশাহী-সরদহ পর্যন্ত ৭৬৯/৭৭০ ধুমকেতু/পদ্মা, চিলাহাটি থেকে নীলফামারী পর্যন্ত ৭৬৬/৭৬৫ নম্বর নীলসাগর এক্সপ্রেস,  নীলফামারী বীর মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল ইসলাম, স্টেশন থেকে সৈয়দপুর পর্যন্ত  ৮০৪/৮০৩ বাংলাাবান্ধা ঈশ্বরদী থেকে রাজশাহী পর্যন্ত ৭৮৩/৭৮৪ নম্বর টুুুঙ্গিপাড়া এক্সপ্রেস চলাচল করবে।
ওইদিন বেলা ১১টায় খুলনা থেকে নওয়াপাড়া পর্যন্ত ৭৬৩/৭৬৪ নম্বর চিত্রা এক্সপ্রেস, রাজশাহী থেকে সরদহ পর্যন্ত ৭৫৩/৭৭০ নম্বর সিল্কসিটি এক্সপ্রেস, ৭৫৬/৭৫৫ নাম্বার মধুমতি এক্সপ্রেস, চিলাহাটি থেকে নীলফামারী পর্যন্ত ৭৪৭/৭২৮ নম্বর সীমান্ত এক্সপ্রেস, ঈশ্বরদী থেকে আবদুলপুর পর্যন্ত ৭৭৯/৭৮০ নম্বর ঢালারচর এক্সপ্রেস চালানো হবে।
আবার ওইদিন দুপুর ১২টায় রাজশাহী থেকে সরদহ পর্যন্ত ৭৯৫/৭৯৬ নম্বর বেনাপোল এক্সপ্রেস, রাজশাহী থেকে সরদহ পর্যন্ত ৭৯২/৭৯১ নম্বর বনলতা এক্সপ্রেস ঈশ্বরদী থেকে আবদুলপুর পর্যন্ত ৭৭৬/৭৭৫ নম্বর সিরাজগঞ্জ এক্সপ্রেস চালানো হবে।
মঙ্গলবার (৪ মে) সকাল ১০টায় খুলনা থেকে নওয়াপাড়া পর্যন্ত ৭১৫/৭১৬ নম্বর কপোতাক্ষ এক্সপ্রেস, রাজশাহী থেকে সরদহ পর্যন্ত ৭৩৩/৭৩৪ তিতুমীর এক্সপ্রেস, চিলাাহাটি থেকে নীলফামারী পর্যন্ত ৭৩২/৭৩১ নম্বর বরেন্দ্র এক্সপ্রেস চালানো হবে।
ওইদিন বেলা ১১টায় খুলনা থেকে নওয়াপাড়া পর্যন্ত ৭৪৮/৭২৭ নম্বর রুপসা এক্সপ্রেস এবং রাজশাহী থেকে সরদহ পর্যন্ত ৭৫৬/৭৫৫ নম্বর মধুমতি এক্সপ্রেস ও দুপুর ১২টায় ৭৬২/৭৬১ নম্বর সাগরদাঁড়ি এক্সপ্রেস চালানো হবে।
পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের পাকশি বিভাগীয় রেলওয়ের যান্ত্রিক প্রকৌশলী (ক্যারেজ) মমতাজুল ইসলাম জানান, লকডাউনের কারণে টানা কয়েকদিন যাত্রীবাহী আন্তঃনগর ট্রেন চলাচল বন্ধ।
যাত্রীবাহী ট্রেনগুলোর যন্ত্রাংশ সব কিছু সচল আছে কি না? যান্ত্রিক গোলযোগ আছে কি না? ট্রেনগুলো বিভিন্ন রুটে চালানোর আগে পরীক্ষামূলকভাবে ট্রায়াল রানে যাচাই বাছাই করা হয়।
পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের পাকশি বিভাগীয় পরিবহন কর্মকর্তা (ডিটিও) আনোয়ার হোসেন জানান, করোনাকালীন সময়ে দ্বিতীয় দফার লকডাউনের কারণে পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের পাকশি বিভাগের আওতায় ১৯টি আন্তনগর ট্রেন চলাচল বন্ধ। গন্তব্য স্থানের শুরু ও শেষ স্টেশনে রাখা হয়েছে যাত্রীবাহী ট্রেনের রেকগুলো। ট্রেন চালানোর নির্দেশনা আসামাত্র ট্রেনগুলো চালানোর আগে, ট্রেনের যন্ত্রাংশ ও বগিগুলো চলাচলের উপযোগী করার জন্যই প্রস্তুত করা হচ্ছে। রেলওয়ের প্রশাসনিক নির্দেশনা পেলে যেকোন সময় ট্রেন চলাচল শুরু হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *