বাগমারায় আইনশৃঙ্খলার অবনতিতে জনমনে উদ্বেগ

আবু বাককার সুজন বাগমারা থেকে: রাজশাহীর বাগমারায় স¤প্রতি আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতির চরম অবনতি দেখা দিয়েছে। আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারি বাহিনীর চরম অবহেলা ও গাফিলতির কারণে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় পূর্ব শত্রুতার জের ধরে পানবরজে অগ্নিসংযোগ, স্বামীর হাতে স্ত্রী খুন, সৎ মায়ের হাতে শিশু হত্যাসহ প্রতিনিয়ত ধর্ষণ, চুরি, ডাকাতি, মাদকের বিস্তার, হামলা, ভাংচুর, সংঘর্ষ ও জমি দখলসহ বিভিন্ন ধরনের অপরাধমূলক কর্মকান্ড সংগঠিত হচ্ছে। এতে জনমনে চরম আতংক ও উৎকন্ঠা বিরাজ করছে।
বাগমারা থানার দেওয়া তথ্য মতে, পূর্বশত্রুতার জের ধরে গত বুধবার ও বৃহস্পতিবার রাতে দুর্বৃত্তদের দেয়া আগুনে উপজেলার গণিপুর ইউনিয়নের বাসুবোয়ালিয়া গ্রামে মকছেদ আলী, আয়েন উদ্দীন ও আবু সাইদ নামে তিন কৃষকের পানবরজ পুড়ে ভস্মীভূত হয়ে যায়। এতে ওই তিন কৃষকের প্রায় ১৩ লাখ টাকার ক্ষতি সাধিত হয়েছে।
এছাড়া বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলার শুভডাঙ্গা ইউনিয়নের বিনোদপুর গ্রামের সৎ মায়ের হাতে মারুফ হাসান (৭) নামে এক শিশু হত্যাকান্ডের শিকার হয়েছে। এ হত্যাকান্ডের ঘটনায় ওই শিশুর তালাকপ্রাপ্ত মা মারুফা বেগম বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়েরের পর পুলিশ ওই শিশুর বাবা শাহজাহান আলী ও সৎ মা মুক্তা বেগমকে আটক করে। গত ২২ এপ্রিল গনিপুর ইউনিয়নের মাধাইমুড়ি গ্রামে জমিজমা নিয়ে বিরোধের জের ধরে কৃষক হাবিল কাজীকে (৪৪) স্কুল পড়–য়া ছেলের সামনেই কুপিয়ে হত্যা করে প্রতিপক্ষরা। এই ঘটনার দুই দিন আগে টিপু সুলতান (২৮) নামে এক পান ব্যবসায়ীকে দুর্বত্তরা অপহরণ করে প্লাস দিয়ে তার হাত ও পায়ের নখ তুলে ফেলে এবং টিপুর কাছে থাকা তিন লক্ষ টাকা ছিনিয়ে নেয়। এ ঘটনায় পুলিশ প্রথমে মামলা নিতে গড়িমশি শুরু করলেও বিষয়টি নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশের পর ওই এজাহার আমলে নিয়ে পাঁচ অপরহণকারীকে গ্রেফতার করে। ২১ এপ্রিল উপজেলা বড়বিহানালী ইউনিয়নের বিলসৌতি বিলের দখল নিয়ে সাবেক ইউপি সদস্য আজাহার আলীর ৫টি সেচ যন্ত্র আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয়া প্রতিপক্ষরা। এর একদিন আগে পূর্বশত্রুতার জের ধরে গোয়ালকান্দি ইউনিয়নের সমসপাড়া গ্রামে আনিছুর রহমান (৪২) নামে এক ব্যক্তিকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে জখম করে প্রতিপক্ষরা। প্রতিবেশিরা তাকে উদ্ধার করে রাজশাহী মেডিকেল হাসপাতালে ভর্তি করান। এ ঘটনায় আনিছুর রহমানের মা ফাতেমা বেগম বাদী হয়ে ছেলেকে হত্যা চেষ্টার অভিযোগে বাগমারা থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। গত ২৯ এপ্রিল উপজেলার চানপাড়া গ্রামে বিয়ের মাত্র দেড় মাসের মাথায় পাষন্ড স্বামীর হাতে সাবিনা খাতুন (১৯) নামে এক নববধূ হত্যাকান্ডের শিকার হন। এই ঘটনায় থানায় হত্যা মামলা দায়েরের পর পুলিশ নিহতের স্বামী সোহাগ হোসেন ও শাশুড়ি রুপালী বেগমকে আটক করেছে।
এদিকে এসব বিষয়ে জানতে চাইলে সোনাডাঙ্গা ইউপি’র চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ আজাহারুল হক, যোগিপাড়া ইউপি’র কামাল হোসেন, গোবিন্দপাড়া ইউপি’র চেয়ারম্যান বিজন সরকার, নরদাশ ইউপি’র চেয়ারম্যান আব্দুল মতিন, গনিপুর ইউপি’র চেয়ারম্যান এ্যাড. মনিরুজ্জামান রঞ্জু ও একই ইউপি’র সাবেক চেয়ারম্যান হারুন অর রশিদ অভিযোগ করে বলেন, সম্প্রতি বাগমারায় আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতির কারণে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় প্রতিনিয়তই বিভিন্ন ধরনের অপরাধমূলক কর্মকান্ড সংঘটিত হচ্ছে। অথচ এসব অনাকাঙ্খিত ঘটনার কোনো প্রতিকার হচ্ছে না। এলাকার আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে রাখার স্বার্থে পুলিশ প্রশাসনের আরো দায়িত্বশীল ভুমিকা পালন করা প্রয়োজন বলে বাগমারা উপজেলা চেয়ারম্যান অনিল কুমার সরকার দাবি করেন। তিনি বলেন, এই সমস্ত বিষয়গুলো মাননীয় এমপি সাহেবকে প্রতিনিয়ত অবহিত করা হচ্ছে। তিনিও বিষয়গুলো নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। আগামী ৭ মে তিনি বাগমারায় আসবেন। তখন এসব বিষয় নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হবে এবং সার্বিক পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখার উদ্যোগ নেওয়া হবে।
বাগমারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোস্তাক আহম্মেদ বলেন, ১৬টি ইউনিয়ন ও দুইটি পৌরসভার সমন্বয়ে গঠিত এ উপজেলায় সাড়ে চার লক্ষাধিক লোকের বাস। বিশাল এলাকা নিয়ন্ত্রন করতে পুলিশকে প্রতিনিয়ত হিমশিম খেতে হয়। কাজেই এখানে বিচ্ছিন্নভাবে দুই-একটি অনাকাঙ্খিত ঘটনা ঘটতে পারে। করোনা মহামারিতেও পুলিশ এসব অনাকাঙ্খিত ঘটনা নিয়ন্ত্রনে দিনরাত পরিশ্রম করে চলেছে।
বাগমারা উপজেলা নির্বাহী অফিসার শরিফ আহম্মেদ জানান, সার্বিকভাবে আমাদের সামাজিক নানান ক্ষেত্রে বিভিন্ন কারণে অবক্ষয় ঘটেছে। তুচ্ছ কারণে পানবরজে অগ্নিকান্ড এটাই তার প্রমান। এসব থেকে উত্তোরণের জন্য আমাদের আরো ভুমিকা নিতে হবে। জেলা প্রশাসনকে বিষয়গুলো অবগত করা হয়েছে। এসব অনাকাঙ্খিত ঘটনা নিয়ন্ত্রনে দ্রুত কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *