চরাঞ্চলে গুলিবিদ্ধের ঘটনায় বিজিবির বিরুদ্ধে অভিযোগ ইউপি চেয়ারম্যানের

বাঘা (রাজশাহী) প্রতিনিধি: রাজশাহীর বাঘার পদ্মার চরাঞ্চলে দুই পক্ষের সংঘর্ষে চারজন গুলিবিদ্ধ এবং পৃথক ঘটনায় অপর একজন ক্ষুনের বিষয়ে পার্শ্ববর্তী কুষ্টিয়া জেলার দৌলতপুর থানার উদয় নগর বিজিবি ক্যাম্পের কতিপয় কর্মকর্তা জড়িত রয়েছেন বলে অভিযোগ ছুড়েছেন চকরাজাপুর ইউপি চেয়ারম্যান আজিজুল আযম। সোমবার(১২-এপ্রিল)বাঘা উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে উপজেলা আইন-শৃংখলা কমিটির মাসিক সভায় তিনি এ অভিযোগ করেন। একই সাথে বাঘা সীমানার চৌমাদিয়া এলাকায় একটি পুলিশ ফাঁড়ির দাবি জানান।
সকাল সাড়ে ১০ টায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পাপিয়া সুলতানার সভাপতিত্বে আয়োজিত সভায় ইউপি চেয়ারম্যান বলেন, সম্প্রতি তাঁর ইউনিয়ন চকরাজাপুর এলাকার চৌমাদিয়া চরাঞ্চলে দিদার ব্যাপারীর এবং মজনু দর্জি পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে প্রথম ঘটনায় মজনু দর্জি পক্ষের চারজন গুলিবিদ্ধ সহ দু’জন গুরত্বর আহন হন। এর ক’দিন না যেতে উদয় নগর বিজিবি ক্যাম্পের কতিপয় সদস্যের সহায়তায় রাত্রি ৯ টার দিকে দিদার ব্যাপারী পক্ষ দর্জি পক্ষের ইব্রাহিম নামে এক ব্যাক্তিকে গুলি করে হত্যা করে এবং মোশারফ হোসেন নামে অপর এক ব্যাক্তিকে অস্ত্র-সহ বিজিবির হাতে তুলে দেয়।
এর আগের ঘটনায় পুলিশ দিদার ব্যাপারী পক্ষের আব্দুর রশিদ নামে একজন আসামীর বাড়ী থেকে ১২ বোতল ফেন্সিডিল জব্দ এবং বিজিবি পরিহিত এক সেট পোশাক উদ্ধার সহ ৩ জনকে আটক করেন। চেয়ারম্যান জানান, উক্ত সংঘর্ষে দুই পক্ষের মধ্যে দিদার ব্যাপারী পক্ষ মাদক ব্যবসার সাথে সম্পৃক্ত। এ কারনে বিজিবির কতিপয় সদস্য তাদের সহায়তা করছেন। এটি আমার একার কথা নয়, এ বিষয়টি চরাঞ্চলের অসংখ্য মানুষের কাছে দিনের মতো পরিস্কার। তিনি এসব ঘটনার কারনে উপজেলার চকরাজাপুর ইউনিয়নের চৌমাদিয়া এলাকায় অতি দ্রুত একটি পুলিশ ফাঁড়ির দাবি জানান।
উক্ত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন বাঘা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও রাজশাহী জেলা আ’লীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক এ্যাড: লায়েব উদ্দিন লাভলু এবং বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম বাবুল। সভায় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলার সকল দপ্তরের প্রধান কর্মকর্তা, সাতজন ইউপি চেয়ারম্যান, ডাক্তার, শিক্ষক , ইমাম, সাংবাদিক ও সমাজের সুধীজন সহ রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ।
আলোচনা সভায় কয়েকজন বক্তা আগত রমজানকে কেন্দ্র করে দ্রব্য মুল্যের বাজার স্থিতিশীল রাখা সহ দেশের অর্থনীতিকে সচল রাখা এবং আইন শৃংখলা কমিটিকে সতর্ক থাকার আহবান জানান। আবার অনেকেই উপজেলার বাঘা বাজারে যানজট নিরসন ও করোনা মোকাবেলায় মাস্ক পরা বাধ্যতা মূলক করার দাবি জানান। একই সাথে কতিপয় চিহৃত মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করে আইনের আওতায় আনার প্রত্যয় ব্যাক্ত করেন অনেকে।
সবশেষে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বক্তাদের আলোচনায় উঠে আসা বিষয় গুলো গুরুত্ব সহকারে দেখভাল করার আশ্বাস দেন। একই সাথে বাঘা থানা পুলিশের পক্ষে (এস আই) লুৎফর রহমান চরাঞ্চলের হত্যাকান্ডের সাথে বিজিবির সক্ষতা থাকার বিষয়টি সুষ্ঠ ভাবে তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিল করবেন বলে অভিমত ব্যক্ত করেন।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *