প্রতীক কোন প্রতিদ্বন্দ্বী নয়, আমার কাছে প্রতিদ্বন্দ্বী এখন ব্যাক্তি

বাঘা প্রতিনিধিঃ বাঘার আড়ানী পৌর নির্বাচনে এবার আওয়ামীলীগের প্রতিদ্বন্দ্বী হয়েছেন আওয়ামীলীগ। দলীয় মনোনয়ন না পাওয়ায় বিদ্রোহী প্রার্থী হয়ে প্রতিদিন মিছিল-সমাবেশ অব্যহত রেখেছেন এই প্রার্থী। তিনি আর কেউ নন, তিনি হলেন বর্তমান মেয়র মুক্তার আলী। তবে মুক্তার আলী নিজেকে কখনই বিদ্রোহী বলছেন না। তাঁর ভাষ্য মতে, আমার কাছে প্রতীক কোন প্রতিদ্বন্দ্বী নয়,আমার কাছে প্রতিদ্বন্দ্বী এখন ব্যাক্তি।সোমবার স্থানীয় সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় কালে তিনি এ কথা বলেন।
মুক্তার আলী বলেন, আর মাত্র ৪ দিন পর নির্বাচন। আমি এর আগেও অনেকবার ভোট করেছি। আমার জনপ্রতিনিধির বয়স ২১ বছর। তবে এবারের মতো সাড়া এর আগে কখনো পায়নি। আমি ভোটারদের কাছ থেকে এই মুহুর্তে যে আশার বানী শুনতে পাচ্ছি সেটা হলো আঞ্চলিক টান। তিনি সাংবাদিকদের বলেন, আপনারা জানেন আমার দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার কথা ছিলো। কিন্ত রাজনৈতিক ম্যারপ্যাচে সেটি হয়নি। তবে আমি জনগণের ভালবাসার মাঝে বেঁচে থাকতে চাই।
এ জন্য তিনি চালাচ্ছেন নির্বাচনী প্রচারনা। দিনের শুরু থেকে দুপুর পর্যন্ত ছুটছেন মানুষের-দারে দারে। এরপর বিকেল হলেই মিছিল। আজ এ ওয়ার্ড তো, কাল অন্য ওয়ার্ড। তাঁর মিছিলে থাকছেন হাজার-হাজার নারী পুরুষ। মুক্তারের একটিই স্বপ্ন , বর্তমান মেয়র হিসাবে দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে যে সব উন্নয়ন কাজ অসম্পন্য রয়েছে সে গুলোকে সম্পর্ন করা।
আড়ানী পৌর এলাকার কয়েকজন ভোটারের সাথে কথা বললে তারা বলেন, এবার মেয়র পদে যে তিনজন প্রতিদ্বন্দিতা করছেন তাদের মধ্যে আ’লীগের মনোনীত প্রার্থী শহীদুজ্জামান শহীদ এবং বিএনপির প্রার্থী তোজাম্মেল হকের বাড়ী রেল লাইনের উত্তরে। সেখানে ৩ টি কেন্দ্রে ভোটার সংখ্যা সাড়ে ৩ হাজার। অপর দিকে রেল লাইনের দক্ষিন প্রান্তে ৬ টি কেন্দ্রে ভোটার সংখ্যা প্রায় ১১ হাজার। এ পাশ থেকে একক প্রার্থী চলমান মেয়র মুক্তার আলী। তাঁর প্রতীক নারিকেল গাছ। তিনি একাধারে ইউপি সদস্য, কাউন্সিলর, প্যানেল মেয়র, ভারপ্রাপ্ত মেয়র এবং সর্বশেষ বিপুল ভোটে নির্বাচিত ৫ বছর মেয়র মিলে মোট ২১ বছরের জনপ্রতিনিধি। ফলে তার অবস্থান অন্য প্রার্থীদের চেয়ে অনেকটায় ভালো ।
নাম প্রকাশ না করার সর্তে স¤প্রতি নির্বাচন থেকে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে সরে দাড়ানো তরুন প্রার্থী ও ছাত্রলীগ নেতা রিবন আহাম্মেদ বাপ্পীর এক কর্মী বলেন, রেল লাইনে উত্তর পাশের লোকজন হিংস্র প্রকৃতির এবং তারা এলাকা ভিত্তির বৈশম্য সৃষ্টি করে। যার উদাহারণ আমরা আড়ানী পৌর সভা প্রতিষ্ঠার পুর্বে আজকের বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী তোজাম্মেল হককে চেয়ারম্যান বানিয়ে দেখেছি । সুতারাং এ ভুল করতে আর রাজি নয়। সবমিলে দক্ষিন প্রান্তের ভোটাররা মনে করছেন, যদি নির্বাচনে কারচুপি না হয় তাহলে আবারও মুক্তার আলী মেয়র নির্বাচিত হবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *