আড়ানীতে মুক্তারের মিছিলে হাজার হাজার নারী-পুরুষের ঢল

বাঘা (রাজশাহী) প্রতিনিধি : বাঘার আড়ানী পৌরসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে বর্তমান মেয়র ও ২১ বছরের নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি মেয়র পদে মুক্তার আলীর পক্ষে গনজোয়ার লক্ষ করা যাচ্ছে। পৌর এলাকায় ভোট চাওয়ার পাশা-পাশি প্রতি একদিন পর-পর তিনি বিভিন্ন পাড়া-মহল্লায় মিছিল-সমাবেশ করছেন। আর মাত্র ৮ দিন বাকি রয়েছে আড়ানী পৌর নির্বাচন সেই হিসেবে গত কাল ৭ জানুয়ারি বৃহস্পতিবার বিকেলে আড়ানী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে নারী ভোটারদের সমাবেশ করেন এই সমাবেশে হাজার-হাজার নারী অংশগ্রহন করেন। সমাবেশ শেষে নারী ও পুরুষ হাজার হাজার ভোটার পৌর এলাকার বিভিন্ন ওয়ার্ডে মিছিলটি প্রদক্ষিন করে।
আগামী ১৬ জানুয়ারি আড়ানী পৌরসভা নির্বাচন। এখানে প্রধান দুই রাজনৈতিক দল আওয়ামীলীগ ও বিএনপি মনোনীত প্রার্থী সহ (স্বতন্ত্র) মেয়র পদে প্রার্থী মুক্তার আলী তাঁর নির্বাচিত প্রতীক নারিকেল গাছ মার্কা নিয়ে বিভিন্ন পাড়া-মহল্লায় গনসংযোগ করছেন। ঘুরছেন ভোটারদের দারে-দারে। এ থেকে তিনি আশার বানী শুনতে পাচ্ছেন ভোটারদের মুখে।
মুক্তার আলীর ঘনিষ্ট কর্মী নাজমুল হক ও আলহাজ শামিম সরকার বলেন , আমরা এর আগেও ভোট করেছি। তবে এবারের মতো সাড়া আগে পায়নি। এর কারণ হিসাকে তাঁরা বলেন, আড়ানী বড়াল নদীর উপর দিয়ে একটি ব্রিজ-তথা রেল লাইন প্রবাহিত। আনেক আগ থেকে রেল লাইনের উত্তর এবং দক্ষিন প্রান্তের মানুষদের মধ্যে একটা দুরুত্ব কাজ করে আসছে। এ দিক থেকে এবার বড় দুই দলের দলীয় দুই প্রার্থী ভোট করছেন রেল লাইনের উত্তর পাশ থেকে। সেখানে তিন কেন্দ্র মিলে মোট ভোটার সংখ্যা প্রায় ১১ হাজার। অপর দিকে উত্তর পাশে ভোটার রয়েছে প্রায় সাড়ে তিন হাজার। এ থেকে তারা জয়ের স্বপ্ন দেখছেন।
সরেজমিন বৃহস্পতিবার বিকেলে আড়ানী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় গিয়ে দেখা গেছে, হাজার হাজার নারী-পুরুষ মুক্তার আলীর পক্ষে তার প্রতীক নারিকেল গাছ মার্কার স্লোগান দিচ্ছেন। তাদের স্লোগানের মধ্যে একটি কথা উঠে আসছে, আমাদের প্রার্থী উত্তরে যাবে না। উত্তরের প্রার্থী দক্ষিনে আসবেন না।
মিছিল পূর্ব সমাবেশে মুক্তার আলী বলেন, আমার উন্নয়ন দৃশ্যমান। আমি আড়ানী পৌর মেয়র নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে গত ৫ বছরে অসংখ্য উন্নয়ন করেছি । আমার দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার কথা ছিলো। কিন্ত রাজনৈতিক ম্যারপ্যাচে সেটি হয়নি। আমি আপনাদের ভালবাসার মাঝে বেঁচে থাকতে চাই। আমার বাড়ি রেল লাইনে দক্ষিনে। আমি এখন পর্যন্ত উত্তরে ভোট চাইতে যাইনি। যাদের মাটির প্রতি টান রয়েছে আমার বিশ্বাস, তারা উত্তরের প্রার্থীকে ভোট দিবেন না। আমি আপনাদের কথা দিয়ে যাচ্ছি, আমি যতদিন বেঁচে থাকবো আপনাদের ক্ষেদমত করে যাবো ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *