হারিয়ে যাচ্ছে গ্রামঞ্চলের ঐতিহ্যবাহী কলের সেমাই

মিজান মাহী, দুর্গাপুর: অত্যাধুনিক মিল কল-কারখানার অটো মেশিনের প্রযুক্তিতে আজ হারিয়ে যেতে বসেছে গ্রামঞ্চলের ঐতিহ্যবাহী কলের হাত মেশিনের সেমাই। লাচ্ছাসহ বিভিন্ন সেমাই ছড়িয়ে পড়ায় এখন আর খুব একটা চোখে পড়ে না। তবে রাজশাহীর দুর্গাপুর পৌর এলাকার সিংগা গ্রামে দেখা গেল কলের মেশিনে নারীদের সেমাই তৈরি করতে।
আগে শীত ও রমজানের শেষ মুহূর্তে এ উপজেলার পাড়ায়-পাড়ায় কলের হাত মেশিনের সেমাই তৈরির ধুম পড়ে যেত। পুরুষরা মেশিনের হ্যান্ডেল ঘুরায় আর নারীরা মেশিনের মুখে আঙুল দিয়ে ঠেসে দেয় ময়দা। হ্যান্ডেলের চাপে কল থেকে ছোট ছোট জালি দিয়ে বের হয় সেমাই। এরপর রোদে শোকানো হয়।
দুর্গাপুর পৌর এলাকার সিংগা গ্রামের বাসিন্দা গৃহিনী শবনম মনি প্রতি বছর আলাদা করে শীত ও রমজানে প্রস্তুতি নেন এসব সেমাই বানাতে। তাকে সাহায্য করেন প্রতিবেশী নারীরা। তখন পরিবারে এক উৎসবের আমেজ থাকে। শবনম মনি জানালেন, কলের হাত মেশিনে সেমাই আলাদা স্বাদ আছে। এটা আমাদের ঐতিহ্য। বাজারের সেমাইয়ের পাশাপাশি এ সেমাইয়ের আলাদা কদর আছে।
তিনি আরও বলেন, এবার চার কেজি ময়দা কিনে তৈরি করেছেন সেমাই। এ সেমাইয়ের কিছু ভাগ তিনি পরিবার সহ খাবেন। পাশাপাশি প্রতিবেশী ও মায়ের বাসায় পাঠাবেন। শীতের পিঠাপুলির পাশাপাশি এ সেমাই দিয়ে তিনি আত্মীয়-স্বজনদের দাওয়াত করে খাওয়াবেন।
উপজেলার দেবীপুর তালুকপাড়া গ্রামের আকলিমা বেগম জানান, শীত আসলেই খেজুর গুড় বাড়িতে তৈরি হয়। তাই কলের হাত মেশিনে সেমাই তৈরি করি। বাপ-দাদার আমল থেকে তালুকপাড়ায় এই সেমাই তৈরি হয়ে আসছে নারীরা। তবে এখন আর তেমনটা দেখা যায় না। আমাদের কাছে বাজারের সেমাই লাচ্ছার চেয়ে কলের মেশিনের সেমাইয়ের স্বাদ বেশি লাগে।
তালুক পাড়ার আমিনুল ইসলাম জানায়, কলের মেশিনের সেমাই আমার কাছে খুব প্রিয়। খেজুর গুড় ও দুধ দিয়ে রান্না করলে কলের মেশিনের সেমাই খুবেই সুস্বাদু হয়। বাজারের সেমাইয়ে ক্ষতিকারক জিনিস থাকে। কিন্তু ময়দা-পানির তৈরি হাত মেশিনের সেমাইয়ে কোনো ক্যামিকেল নেই। এ জন্য আমি শীত আসলেই কলের হাত ঈদুল ফিতরে হাত মেশিনের সেমাই খাই।
উপজেলা শাপলা আমিন সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোবারক হোসেন শিশির বলেন, তার জানামতে ১৫ বছরেরও বেশি সময় আগে এ উপজেলার গ্রাম-গঞ্জে কলের হাত মেশিনের সেমাইয়ের কদর ছিল। ওই সময় তিনি তার পরিবারে হাত মেশিনের হ্যান্ডেল ঘুরিয়ে সেমাই তৈরিতে সহযোগিতা করেছেন। কালের বিবর্তনে হাত মেশিনের সেমাই আজ তেমন চোখে পড়ে না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *