বিএনপির মনোনয়ন বঞ্চিত প্রার্থী ভোট করছেন নৌকার !

বাঘা(রাজশাহী)প্রতিনিধি :  রাজশাহীর বাঘা উপজেলার আড়ানী পৌর নির্বাচনকে সামনে রেখে প্রার্থী যাচাই-বাছাই এর পর সরব হয়ে উঠেছে প্রচার-প্রচারনা। এখানে আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থীর প্রতিদ্বন্দ্বী হয়েছেন আরেক জন আ’লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী। অপর দিকে বিএনপির দলীয় মনোনয়ন না পেয়ে নির্বাচন থেকে সরে এসে আ’লীগ দলীয় প্রার্থীর পক্ষে ভোট করতে মাঠে নেমেছেন বিএনপির আরেক প্রার্থী ও সাবেক মেয়র নজরুল ইসলাম । এ ঘটনায় বিএনপির মধ্যে ফাটল দেখা দিয়েছে।
এ পৌর সভায় এবার আ’লীগ থেকে দলীয় প্রার্থী হয়েছেন আড়ানী পৌর আ’লীগের সভাপতি শহীদুজ্জামান শহীদ। অপর দিকে উন্নয়ন কাজের ফিরিস্থি তুলে ধরে গণসংযোগ করছেন একই দলের বিদ্রোহী প্রার্থী ও বর্তমান মেয়র মুক্তার আলী। এদিক থেকে নির্বাচনী আচারণ মেনে ধির-গতিতে প্রচারনা চালাচ্ছেন বিএনপির একক প্রার্থী তোজাম্মেল হক। তাঁর অভিযোগ, বিএনপি থেকে দলীয় মনোনয়ন না পেয়ে সাবেক মেয়র নজরুল ইসলাম এবার নৌকার পক্ষে ভোট করছেন।
সরেজমিন আড়ানী পৌর এলকা ঘুরে লক্ষ করা গেছে, মেয়র পদে আওয়ামী লীগ সমর্থীত দু’জন এবং বিএনপি থেকে একজন প্রার্থী এলাকায় প্রচার-প্রচারনা চালাচ্ছেন। এর মধ্যে আওয়ামীলীগ দলীয় শহীদুজ্জামান শহীদ এবং একই দলের বিদ্রোহী প্রার্থী ও বর্তমার মেয়র মুক্তার আলী অসংখ্যা মোটর সাইকেল সহ শতাধিক নেতা-কর্মী নিয়ে প্রতিদিন বিকেল থেকে রাত পর্যন্ত বিভিন্ন বাজার এবং পাড়া-মহল্লায় সোডাউন দিয়ে নির্বাচনী প্রচারনা চালাচ্ছেন।
এদিক থেকে বিএনপির দলীয় প্রার্থী তোজাম্মেল হক কিছু সংখ্যক লেকজন নিয়ে ধির-গতিতে হাটছেন পৌর এলকার পাড়া-মহল্লায়। তিনি শুক্রবার এ প্রতিবেদককে জানান, তাঁদের দল থেকে মনোনয়ন বঞ্চিত অপর প্রার্থী ও সাবেক পৌর মেয়র নজরুল ইসলাম ইতোমধ্যে আ’লীগের দলীয় প্রার্থীর পক্ষে প্রচারনায় নেমেছেন। যার সত্যতা স্বীকার করেছেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছক আ’লীগের একাধিন নেতা-কর্মীসহ বিএনপির লোকজন। তবে এ কথা সত্য নয় বলে দাবি করেছেন নজরুল ইসলাম।
তোজাম্মেল হক বলেন, বিরোধী দল থেকে ভোট করা খুব একটা সহজ নয়, আমাদের সামান্য ভুল অনেক বড় আকার ধারন করে। এ নিয়ে মামলা মোর্কারদমা হয়। গত দু’দিন পুর্বে পৌর এলাকার রুস্তমপুর এলাকায় ভোট করতে গেলে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থীর কর্মীরা আমাদের অপমান সূচক কথা বলে এলাকা ছাড়তে বাধ্য করে। তথাপি আমি কোন অভিযোগ করিনি। আমার বিশ্বাস এবার আমি বিজয়ী হবো।
অপর দিকে শহীদুজ্জামান শাহীদ ভোটারদের উদ্দেশ্যে বলছেন, স্থানীয় সাংসদ ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম এমপির সহযোগিতায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমাকে নৌকার প্রার্থী হিসেবে মনোনীত করেছেন। তাই আমি নৌকার মাঝি হয়েছি। এলাকার উন্নয়ন পেতে হলে আগামী ১৬ জানুয়ারি আপনাদের মুল্যবান ভোট দিয়ে আমাকে বিজয়ী করবেন।
এদিকে জীবন বাজি রেখে ভোট যুদ্ধে নেমেছেন আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ও বর্তমান মেয়র মুক্তার আলী। তিনি প্রতিদিন শত-শত নেতা-কর্মী নিয়ে প্রচার-প্রচারনা চালাচ্ছেন। তাঁর উক্তি শরীলে এক বিন্দু রক্ত থাকা পর্যন্ত প্রার্থীতা প্রত্যাহার করবো না। তিনি স্থানীয় গনমাধ্যম কর্মীদের বলেন, আমার উন্নয়ন দৃশ্যমান। আমি চলমান মেয়র। যদি এমন হতো, আমি কোন উন্নয়ন করিনি ! তাহলে দল আমাকে মনোনয়ন না দিলেও আমার কোন দুঃখ থাকতো না। কিন্তু এখানে সেটা হয়নি, তৃণমুলের মতামত উপেক্ষা করে পৌর আ’লীগের সভাপতিকে দলীয় মনোনয়ন দেয়া হয়েছে। আমি আমার অসমাপ্ত উন্নয়ন কাজ গুলো বাস্তবায়নের লক্ষে আরেকবার ভোট করতে চাই। এ জন্য মাঠে আছি এবং থাকবো।
তবে উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম বাবুল দাবি করেছেন, একটি বড় রাজনৈতিক দলের মধ্যে মতবিরোধ থাকতে পারে। এটা সময়ের ব্যাপার। সামনে প্রার্থীতা প্রত্যাহারের সময় আছে। আমরা শেষ পর্যন্ত একক প্রার্থী দেয়ার চেষ্টা করবো।
এদিক থেকে অতিসত্বর বিএনপির মনোনয়ন বঞ্চিত নেতা ও সাবেক মেয়র নজরুল ইসলামকে দল থেকে বহিস্কারের দাবি জানিয়েছেন আড়ানী পৌর বিএনপির নেতৃবৃন্দ-সহ তৃনমুল বিএনপির নেতা-কর্মীরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *