নওগাঁ জেলায় রবি মওসুমের ৮টি ফসলের আওতায় ২৪ হাজার ৪শ কৃষকের অনুকুলে ২ কোটি ৬৯ লক্ষ ১৭ হাজার টাকা’র কৃষি পুনর্বাসন কর্মসূচী

নওগাঁ প্রতিনি‘িধ : নওগাঁ জেলায় মোট ৮টি ফসলের বিপরীতে মোট ২ কোটি ৬৯ লক্ষ ১৭ হাজার টাকার কৃষি পুনর্বাসন কর্মসূচী হাতে নেয়া হয়েছে। কৃষি সম্প্রসারন াধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ মোঃ শামসুল ওয়াদুদ জানি“েয়ছেন ২০২০-২০২১ অর্থ বছরের রবি মওসুৃমে এই কৃষি পুনর্বাসন কর্মসূচীর আওতায় এসব ফসলের জন্য মোট ৩২ হাজার ৫শ কৃষকের মধ্যে প্রত্যেকের ১ বিঘা জমির অনুকুলে উল্লেখিত পরিমান টাকা মুল্যের বীজ ও সার বিতরন করার কার্যক্রম চলছে।
পুনর্বাসন কর্মসূচীর আওতায় রয়েছে ৫ হাজার জন গমচাষী, ১০ হাজার জন সরিষাচাষী, ২ হগাজার ৫শ জন সূর্যমুখী চাষী, ২ হাজার জন চিনাবাদাম চাষী, ৪ হাজার জন মসুর ডাল চাষী, ৪ হাজার জন খেসারী ডাল চাষী, ২ হাজার জন টমেটো চাষী এবং ৩ হাজার জন মরিচ চাষী। প্রত্যেক কৃষকের ১ বিঘা জমির বিপরীতে এসব প্রদান করা হচ্ছে।
উপেজেলা ভিত্তিক ফসলওয়ারী কৃষকের সংখ্যা হচ্ছে নওগাঁ সদর উপজেলায় ২৫০ জন গমচাষী, ৭শ জন সরিষাচাষী, ৩৫০ জন সূর্যমুখী চাষী, ২৫০ জন চিনাবাদাম চাষী, ৪শ জন মসুরডাল চাষী, ৫শ জন খেসারী চাষী, ২৫০ জন টমেটো চাষী ও ৪শ জন মরিচ চাষী। রানীনগর উপজেলায় ১৫০ জন গমচাষী, ১ হাজার জন সরিষা চাষী, ৩শ জন সূর্যমুখী চাষী, ২৫০ জন চিনাবাদাম চাষী, ৩৫০ জন মসুর চাসী, ৪শ জন খেসারী চাষী, ২শ জন টমেটো চাষী ও ২শ জন মরিচ চাষী। আত্রাই উপজেলায় ১০০ জন গমচাষী, ১ হাজার জন সরিষা চাষী, ৩শ জন সূর্যমুখী চাষী, ৪শ জন চিনা বাদাম চাষী, ৪শ জন মসুর চাষী, ৫শ জন খেসারী চাষী, ১৫০ জন টমেটো চাষী ও ৩শ জন মরিচ চাষী। বদলগাছি উপজেলায় ১০০ জন গমচাষী, ৪শ জন সরিষা চাষী, ১০০ জন সূর্যমুখী চাষী, ১০০ জন চিনাবাদাম চা“ষী, ৪শ জন মসুর চাষী, ৩ জন খেসারী চাষী, ২শ জন টমেটো চাষী ও ৩শ জন মরিচ চাষী। মহাদেবপুর উপজেলায় ২০০ জন গমচাষী, ৫শ জন সরিষা চাষী, ২০০ জন সূর্যমুখী চাষী, ১০০ জন চিনাবাদাম চাষী, ৩শ জন মুসর চাষী, ৩শ জন খেসারী চাষী, ২৫০ জন টমেটো চাষী ও ৩শ জন মরিচ চাসী। পতœীতলা উপজেলায় ৫০০ জন গমচাষী, ১ হাজার জন সরিষা চাষী, ২০০ জন সূর্যমুখী চাষী, ১০০ জন চিনাবাদাম চাষী, ৩শ জন মসুর চাষী, ৩শ জন খেসারী চাষী, ২শ জন টমেটো চাষী ও ২৫০ জন মরিচ চাষী। ধামইরহাট উপজেলায় ৩০০ জন গমচাষী, ৫শ জন সরিষা চাষী, ১৫০ জনসূর্যমুখী চাষী, ১০০ জন চিনাবাদাম চাষী, ৪শ জন মসুর চাষী, ২০০ জন খেসারী চাষী, ১৫০ জন টমেটো চাষী ও ২৫০ জন মরিচ চাষী। সাপাহার উপজেলায় ১ হাজার জন গমচাষী, ৯শ জন সরিষা চাষী, ২০০ জন সূর্যমুখী চাষী, ১০০ জন চিনাবাদাম চাষী, ৩শ জন মসুর চাষী, ২০০ জন খেসারী চাষী, ১০০ জন টমেটো চাষী ও ১০০ জন মরিচ চাষী। পোরশা উপজেলায় ১ হাজার জন গমচাষী, ৮শ জন সরিষা চাষী, ২০০ জন সূর্যমুখী চাষী, ১০০ জন চিনাবাদাম চাষী, ২৫০ জন মসুর চাষী, ২৫০ জন খেসারী চাষী, ১০০ জন টমেটো চাষী ও ১০০ জন মরিচ চাষী। মান্দা উপজেলায় ৬০০ জন গম চাষী, ২২০০ জন সরিষা চাষী, ৩৫০ জন সূর্যমুখী চাষী, ৪শ জন চিনাবাদাম চাষী, ৬শ জন মসুর চাষী, ৮শ জন খেসারী চাষী, ৩০০ জন টমেটো চাষী ও ৬শ জন মরিচ চাষী। নিয়ামতপুর উপজেলায় ৮শ জন গমচাষী, ১ হাজার জন সরিষা চাষী, ১৫০ জন সূর্যমুখী চাষী, ১০০ জন চিনাবাদাম চাষী, ৩শ জন মসুর চাসী, ২৫০ জন খেসারী চাষী, ১০০ জন টমেটো চাষী ও ২০০ জন মরিচ চাষী।
সুত্রমতে ৫ হাজার জন গমচাষীদের কেবলমাত্র বিঘাপ্রতি ২০ কেজি করে মোট ১০ হাজার কেজি বীজ যার মুল্য ৬ লক্ষ টাকা। ১০ হাজার জন সরিষা চাষীদের প্রত্যেককে ১ কেজি বীজ, ১০ কেজি ডিএপি ও ১০ কেজি করে এমওপি যার মোট মুল্য ৩৫ লক্ষ ৮০ হাজার টাকা। ২ হাজার ৫শ সূর্যমুখী চাষীদের প্রত্যেককে বিঘাপ্রতি ১ কেজি করে মোট ২ হাজার ৫শ কেজি শুধু বীজ যার মুল্য ৩৫ লক্ষ টাকা, ২ হাজার জন চিনাবাদাম চাষীদের প্রত্যেককে ১০ কেজি করে মোট ২০ হাজার কেজি শুধু বীজ যার মোট মুল্য ২৪ লক্ষ ৮০ হাজার টাকা, ৪ হাজার জন মসুরডাল চাষীদের প্রত্যেককে ৫ কেজি বীজ, ৫ কেজি ডিএপি ও ৫ কেজি করে এমওপি যার মোট মুল্য ২৯ লক্ষ ৮০ হাজার টাকা, ৪ হাজার জন খেসারী চাষীদের প্রত্যেককে ৮ কেজি বীজ, ৫ কেজি ডিএপি ও ৫ কেজি করে এমওপি যার মোট মুল্য ৩৪ লক্ষ ২০ হাজার টাকা, ২ হাজার জন টমেটো চাষীদের প্রত্যেককে ৫০ গ্রাম বীজ, ১০ কেজি ডিএপি ও ১০ কেজি করে এমওপি যার মোট মুল্য ৭ লক্ষ ৪০ হাজার টাকা এবং ৩ হাজার জন মরিচ চাষীদের প্রত্যেককে ৩শ গ্রাম বীজ, ১০ কেজি ডিএপি ও ৫ কেজি করে এমওপি যার মোট মুল্য ১৫ লক্ষ ১৫ হাজার টাকা। এসব বীজ, ডিএপি এবং এমওপি সারের মোট মুল্য ১ কোচি ৮৮ লক্ষ ১৫ হাজার টাকা। এ ছাড়াও বীজ, সার পরিবহন এবং অন্যান্য আনুষাংগিত খরচ বাবদ আরও ৮১ লক্ষ ২ হাজার টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *