বাঘায় অপহরণ মামলা দেয়ার পর জমি নিয়ে বাল্য বিয়ে !

বাঘা(রাজশাহী)প্রতিনিধি : রাজশাহীর বাঘায় স্কুল ছাত্রীকে অপহরণ করার অভিযোগ দেয়ার পর মেয়ের নামে একবিঘা জমি দেয়ার সর্তে তার কন্যাকে বাল্য বিয়ে দিয়েছেন এক পিতা। রবিবার(১৮-অক্টোবর) রাতে উপজেলার দেবত্তর বিনোদপুর এলাকায় এই বাল্যবিয়ে অনুষ্ঠিত হয়। খবর পেয়ে বাঘা থানা পুলিশ প্রেমিক যুগল ছেলে-মেয়েকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে।
অভিযোগ সুত্রে জানা গেছে , উপজেলার দেবত্তর বিনোদপুর গ্রামের আলমঙ্গীর হোসেন ১৭-অক্টোবর বাঘা থানায় তাঁর দশম শ্রেনী পড়া মেয়েকে অপহরণ করা হয়েছে বলে একটি অপহরণ মামলা দায়ের করেন। এ মামলায় প্রতিবেশী মতিউর রহমান জয় কে প্রধান আসামী করে তার পিতা এবং ভাই সহ মোট ৪ জনকে অভিযুক্ত করা হয়। এ খবর পেয়ে পালিয়ে যাই অভিযুক্তরা।
পরে স্থানীয় গ্রাম প্রধানদের মাধ্যমে মেয়ের বাবা আলমঙ্গীর হোসেনকে ম্যানেজ করার চেষ্টা করা হয়। এ সময় তিনি ছেলের পিতা বাদশা আলমের কাছে তার মেয়ের নামে এক বিঘা (আম-বাগান)জমি রেজিস্ট্রি দাবি জানান। নিরুপায় হয়ে ছেলের পিতা এ সর্ত মেনে নেন এবং ১৮ অক্টোবর রাতে উভয় পক্ষের সম্মতিতে ১ লক্ষ এক হাজার টাকা দেন মহর ধার্য করে তাদের বিয়ে সম্পন্য হয়।
এদিকে খবর পেয়ে ঐ রাতে বাঘা থানা পুলিশ মেয়ের বাবার দায়ের করা অপহরণ মামলায় অপহৃত স্কুল ছাত্রী ও অপহরণকারী জয়’কে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা(এস.আই)লুৎফর রহমান জানান,পুলিশ যেতে সামান্য দেরি হওয়ায় মেয়ের বাবা ত্রিপুল নাইন (৯) এ ফোন করে ছিলেন। এরপর যখন ছেলের বাবা জমি দিতে চাইলেন তখন তিনি তার মেয়েকে নিজে উপস্থিত থেকে বিয়ে দিলেন।
বাঘা থানা অফিসার ইনচার্জ(ওসি)নজরুল ইসলাম জানান, মেয়ের বাবা অপহরণ মামলা দায়ের করলে আমরা সেটা রেকর্ড করি। এরপর গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ভিকটিমকে উদ্ধার করি। তাদেরেকে সোমবার দুপুরে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। #

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *