রাজশাহী সেফ হোমে বিনা চিকিৎসায় নারীর মৃত্যু

রাজশাহী প্রতিনিধি :-রাজশাহীর বায়া সেফ হোমে বিনা চিকিৎসায় জুলেখা খাতুন (৫৫) নামে এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার রাত ১০ টার দিকে তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
এর আগে দুপুরে তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন। কিন্তু দিনভর তার কোন চিকিৎসা হয়নি। রাতে তার অবস্থার অবনতি হলে তাকে রামেক হাসপাতালে পাঠানো হয় বলে জানা গেছে।
সেফ হোম ও হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, জুলেখা ২০১১ সাল থেকে রাজশাহীর বায়া সেফ হোমে রয়েছেন। সম্প্রতি তিনি নির্যাতনের শিকার হয়ে অসুস্থ হয়ে পরে। এর পর দাতে রামেক হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা দেয়া হয়। চিকিৎসকরা তাকে সম্পূর্ন বিশ্রামে থাকার পরামর্শ দেয়। কিন্তু বায়া সেফ হোমে তাকে দিয়ে শ্রমিকের কাজ করান এর পরিচালক।এর ফলে মঙ্গলবার দুপুরে হটাৎ অসুস্থ হয়ে যায়। রাতের তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে সেফ হোমের শিনির নামের একজন ভিক্টিম ও একজন আনসার সদস্য তাকে রামেক হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে কর্মরত চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষনা করেন।
হাসপাতালের উপ-পরিচালক সাইফুল ফেরদৌস বলেন, সেফ হোমের ওই নারীকে হাসপাতালে নেয়ার আগেই মৃত্যু হয়। তবে কি কারণে তার মৃত্যু হয়েছে তা প্রাথমিকভাবে জানা যায়নি। লাশ হাসপাতালের হিমঘরে রাখা হয়েছে।
অন্যদিকে বায়া সেফ হোমের পরিচালক মোছা: লাইজু রাজ্জাক বলেন, ২০১১ সালে সেফ হোমে রয়েছে জুলেখা খাতুন (৫৫)। তার কোন পরিচয় পাওয়া যায়নি। তিনি তার পরিচয় জানতে পারেনি।
তিনি বলেন, এর আগেও জুলেখা অসুস্থ্য হয়ে পড়লে রামেক হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা দেয়া হয়। তার চিকিৎসার কাগজপত্র আছে। আজ আর হটাৎ অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে রামেক হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে তিনি মারা যান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *