রাজশাহী জেলা পুলিশের মাসিক সভায় শ্রেষ্টত্বে হ্যাটট্রিক-এসআই লুৎফর

বাঘা(রাজশাহী) প্রতিনিধি : রাজশাহী জেলা পুলিশের মাসিক কল্যাণ সভায় সার্বিক বিষয়ে একটানা তৃতীয়বার পুরুস্কৃত হয়ে খুশির বন্যায় উল্লাশিত হয়েছেন বাঘা থানা পুলিশের এস.আই লুৎফর রহমান।
মঙ্গলবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক প্রফাইলে এমনটি অভিমত ব্যক্ত করেন তিনি। একই সাথে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন রাজশাহী জেলা পুলিশ সুপার মহাম্বয় ও বাঘা থানা অফিসার ইনচার্জ-সহ জেলা পুলিশের অন্যান্য কর্মকর্তা বৃন্দকে।
লুৎফর রহমান জানান, ভালো কাজের স্বীকৃতি ও সাফল্য পুরুস্কার দেয়া হচ্ছে বাংলাদেশ পুলিশ বিভাগে। সেই ধারাবাহিকতা পূর্বের যে কোন সময়েরে চেয়ে মামলা নিস্পত্তি,পরোয়ানা তামিল, প্রসিকেশন দাখিল, মাদক উদ্ধার, পুলিশের আচারণ ও সততা, মামলার ক্লু-উদঘাটন ইত্যাদি বিষয়ে সাফল্য অর্জন করে চলেছে বাঘা থানা পুলিশ। আর সেই সাফল্য অর্জনে পর-পর তিনবার তিনি পুরুস্কার লাভ করেছেন। এ জন্য তিনি রাজশাহী জেলা পুলিশ সুপার মহাদ্বয় এবং বাঘা থানা অফিসার ইনচার্জ সহ জেলা পুলিশের সকল কর্মকর্তাকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।
বাঘা থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নজরুল ইসলাম জানান, আমরা ২০২০ সালের সার্বিক মূল্যায়নে জেলায় শ্রেষ্ঠ হয়েছি। এর মধ্যে বাঘা ও চারঘাট থানা সার্কেল সিনিয়ার (এ.এস.পি) নুরে আলম স্যার গতমাসে একটি হত্যা মামলার ক্লু-উদঘাটন করে আসামী আটক-সহ চলতি মাসেও পুরুস্কৃত হয়েছেন। একই সাথে আমি নিজে ৪১১ টি ওয়ারেন্ট নিস্পত্তি সহ ১৬ টি সাজা ওয়ারেন্ট আসামী আটক করে গতমাসে পুরুস্কৃত হয়।
সর্বশেষ সার্বিক বিষয়ে এবারের মূল্যায়নে ভালো কাজের স্বীকৃতি স্বরুপ আবারও সম্মাননা সারক (পুরস্কার) পেয়েছেন বাঘা থানার উপ-পরিদর্শক (এস.আই) লুৎফর রহমান। এ নিয়ে পর-পর তিনবার তিনি পুরস্কৃত হলেন। আমি তার সাফল্য ও মঙ্গল কামনা করছি।
প্রসঙ্গত মঙ্গলবার সকাল ১০ টায় রাজশাহী জেলা পুলিশের আয়োজনে মাসিক কল্যাণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রাজশাহী পুলিশ সুপার এ.বি.এম মাসুদ হোসেন, বিপিএম (বার)সহ জেলা পুলিশের অন্যান্য কর্মকর্তাগণ।সভায় উপস্থিত ফোর্সদের জন্য স্বাস্থ্যসেবা সুবিধা, লজিস্টিক সাপোর্ট এবং অবকাঠামো উন্নয়ন বৃদ্ধিকরণ-সহ মাসিক অপরাধ বিষয়ে আলোকপাত করা হয়।
এ সময় বিট পুলিশিং কার্যক্রমের মাধ্যমে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্থিতিশীল রাখা ও জনবান্ধব পুলিশিং নিশ্চিত করার নির্দেশনা প্রদান করা হয়। এ ছাড়াও সকল পুলিশ সদস্যকে দেশপ্রেম, পেশাদারিত্ব, দক্ষতা ও নিষ্ঠার সাথে নিজ-নিজ কর্তব্য পালনের মাধ্যমে সাধারণ জনগণের আস্থা অর্জনের বিষয়ে নির্দেশনা প্রদান করা হয় এবং বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে ভালো কাজের সাফল্য পুরুস্কার দেয়া হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *