রাজশাহীতে বিকেল হলেই মোড়ে মোড়ে খুলছে দোকানপাট , জরিমানাও চলছে ভ্রাম্যমাণ আদালতের

নিজস্ব প্রতিবেদক রাজশাহী:- কঠোর লকডাউনের ভেতর রাজশাহী শহরে কিছুটা বেড়েছে মানুষের চলাচল। বিশেষ করে নগরীর অলি-গলি ও বিভিন্ন মোড়ে মোড়ে মানুষের আড্ডাও বেড়েছে। এমনকি মূল শহর থেকে একটু ভিতরের দিকে গেহলেই মোড়ে মোড়ে দোকানপাটও খোলা দেখা গেছে। বিকেলের দিকে দোকানপাট খোলার সংখ্যা বাড়ছে। বেড়েছে রিকশার সংখ্যাও। তবে অহেতুক ঘরের বাইরে আসা মানুষকে জরিমানাও করছে প্রশাসন।
লকডাউনের ৫ম দিন সোমবার সকালে নগরীর সাহেববাজার এলাকায় গিয়ে দেখা গেছে, নানা প্রয়োজনে বাইরে এসেছেন মানুষ। শসংখ্যায় কম হলেও নগরীতে চলাচল করছে ব্যাটারিচালিত রিকশা। এছাড়া মোটরসাইকেল এবং ব্যক্তিগত গাড়িও চলছে। তবে বন্ধ রয়েছে দোকানপাট।
নগরীর মালদা কলনিতে সকাল ১১টার দিকে গিয়ে দেখা যায়, সবজি বাজারকেন্দ্রীক  শতা মানুষের ভিড়। এর বেশিরভাগই উৎসুক জনতা। বাইরে বের হয়েছেন ঘুরাঘুরি বা চা-সিগারেট পানের উদ্দেশ্যে। অনেকেই বাজার করেও নিয়ে যাচ্ছেন।
মজিবর রহমান নামের একজন বলেন, ‘কতক্ষণ বাড়িতে বসে থাকা যায়। তাই চা খেতে বের হয়েছি। চায়ের দোকান প্রকাশ্যে খুলছে না। তবে গলির ভিতর ফ্লাক্সে করে নিয়ে বসে থাকছে। সিগারেটের দোকান প্রকাশ্যেই খুলছে।’
গত রবিবার বিকেলে নগরীর কয়ের দাঁড়া মোড়ে গিয়ে দেখা যায়, সেখানে অন্তত দুই শতাধিক মানুষের আড্ডা। অনেকেই চায়ের দোকানে বসেই আড্ডা দিচ্ছেন। বিকেলের পরপরই এসব দোকানপাট খুলছে। সন্ধ্যার পরথেকে অনেকটা রাতভর কোনো কোনো দোকান খোলা থাকছে বলে জানান ওই এলাকার লোকজন।
একইভাবে নগরীর মূল শহরের অদূরে গেলেই দোকানপাট খোলা থাকছে মোড়ে মোড়ে। তবে প্রশাসনের গাড়ি দেখলেই নিমিশেই বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। কোনো কোনো স্থানে দোকান খোলা রাখা অবস্থায় হাতেনাতে ধরে জেল-জরিমানাও করছেন ভ্রাম্যমান আদালত।
এদিকে মানুষকে ঘরে ফেরানোর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন পুলিশ, র‌্যাব, বিজিবি, সেনাবাহিনী এবং আনসার বাহিনীর সদস্যরাও। বিনাপ্রয়োজনে বের হওয়া মানুষকে শাস্তির মুখোমুখি করতে জেলা প্রশাসনের চারজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে মাঠে আছে চারটি ভ্রাম্যমাণ আদালত। লকাডউন মানতে বাধ্য করতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে সার্বিক চেষ্টা চালানো হচ্ছে। তার পরেও উৎসুক মানুষের ঘুরাফেরা রোধ করা যাচ্ছে না। বিশেষ করে ধুমপায়ীদের ঘরমুখি করা মুশকিল হয়ে যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন প্রশাসনের একাধিক কর্মকর্তা।
রাজশাহীর অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মুহাম্মদ শরিফুল হক জানান, রবিবার সকাল থেকে বেলা ৩টা পর্যন্ত রাজশাহী মহানগর এলাকায় ২৬টি মামলায় ৩৭ জনকে জরিমানা করা হয়েছে। এঁদের কাছ থেকে জরিমানা আদায় করা হয়েছে ৯ হাজার ৭০০ টাকা। এর আগের দিন শনিবার নগরীতে ৪১টি মামলায় জরিমানা আদায় করা হয়েছে ২১ হাজার ৯০০ টাকা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *