মোহনপুরে কোরবানি ঈদে প্রস্তুত পৌর রাজ

এম এম মামুন  : লকডাইনে রাজশাহীতে  পশু বিক্রয় নিয়ে দু:চিন্তায় রয়েছে খামারিরা। এবছর  ভারতীয় গরু না আসায় রাজশাহীর দেশীয় গরুর উৎপাদন ও চাহিদা দুটোই বেড়েছে। রাজশাহীর  মোহনপুর উপজেলার কেশরহাট পৌরসভার রায়ঘাটি গ্রামের মাহাবুর রহমান প্রায় সাড়ে তিন বছর ধরে লালন পালন করছেন হলেস্টিম ফ্রিজিয়ান জাতের একটি গরু। পৌরসভার এলাকায় বৃহৎ এ গরুর নাম রাখা হয়েছে ‘পৌর রাজ’।

পৌর রাজকে প্রতিদিন খাবার দিতে হয় মশুর, খেসারি, খৈল, ছোলা, গম,  চাল,  আঙ্গুর, আপেল,  কলা ও ঘাস। পৌর রাজের ওজন প্রায় ৩০ মণ। গরুটির বুক ১০৫ ইঞ্চি, হানা ৭০ ইঞ্চি, লম্বা ৯১ ইঞ্চি। পবিত্র  ঈদ-উল-আযহা উপলক্ষে কোরমানির জন্য প্রস্তুত এ ‘পৌর রাজ’। তাকে দেখতে আসেন আশপাশের এলাকার অসংখ্য মানুষ।
পৌর রাজের মালিক মাহাবুর রহমান বলেন, বর্তমানে প্রতিদিন তার খাবারেট জন্য ব্যয় হয় ১৫০০/ ১৬০০ টাকা। ব্যাবসায়ীরা ষাঁড়ের দাম বলতে শুরু করেছে ৮/৯ লাখ টাকা। আমি দাম চাচ্ছি ১৫ লাখ টাকা। গরুটি কেনার আগ্রহীরা সরাসরি অথবা ০১৭৩৫-৩৩২৭৯৬ নাম্বারে ফোন করে  যোগাযোগ করতে পারেন।
মোহনপুর উপজেলার নির্বাহী অফিসার সানওয়ার হোসেন জানান, মোহনপুর উপজেলায় বিভিন্ন জাতের গরু রয়েছে। খামারীরা তাদের গরুর ছবি ও ভিডিও মাধ্যমে ক্রেতাদের আগ্রহী করে অনলাইনে গরু বিক্রি করতে পারেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *