বাঘায় ঝর ও শিলা বৃষ্টিতে আমসহ অন্যান্য ফসলের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি

বাঘা (রাজশাহী) প্রতিনিধি : চৈত্র তৃতীয় সপ্তাহে রাজশাহীর বাঘা উপজেলার ওপর দিয়ে বয়ে গেছে ঝড়ো হাওয়া। সেই সঙ্গে ছিল ব্যাপক শিলাবৃষ্টি যেন তা-ব চালিয়ে ফসলি ক্ষেত। রবিবার ৪ এপ্রিল বিকাল সাড়ে ৪ টায় ঝর ও শিলাবৃষ্টি হয়। শিলার আঘাতে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয়েছে আম ও অন্যান্য ফসলের।
রাজশাহীর বাঘা উপজেলায় ঝর ও শিলা বৃষ্টিতে আম, ধান,জামসহ উঠতি মৌসুমী ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। এক ঘন্টা ধরে বরফে ঢাকা পড়ে থাকে শত শত হেক্টর রবি ফসলের জমি।
এতে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন কৃষকেরা। প্রায় ১ ঘন্টার এই শিলা বৃষ্টিতে বাঘার বিভিন্ন গ্রামে আম, ধান, গম, পিয়াজ, সবজি সহ উঠতি ফসলের ব্যপক ক্ষতি হয়েছে। ব্যাপক হারে শিলা বৃষ্টি হওয়ায় ফসলের জমি বরফে ঢেকে থাকে কয়েক ঘন্টা।
শিলা বৃষ্টিতে কয়েক হাজার হেক্টর জমির ফসল বিনষ্ট হয়েছে বলে দাবি করেছে কৃষকেরা। তবে ক্ষতি নিরুপণে মাঠে নেমেছে স্থানীয় কৃষি কর্মকর্তারা বলে জানিয়েছেন, বাঘা উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার শফিউল্লা সুলতান।
বাঘা পৌর এলাকার কলিগ্রাম গ্রামের কৃষক হাসমত আলী গাইন বলেন, শিলা বৃষ্টিতে তার ৫ বিঘা জমিতে আম বাগানের ঝর ও শিলা পড়ে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। এতে তার ১০ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। একই গ্রামের কৃষক আশরাফৌদোল্লাহ জানান, তার ভৃট্রা ও পিয়াজের জমির কিছুই নেই। বরফ দিয়ে ঢাকা পড়ে সম্পন্ন জমি। কৃষক সাইফুল ইসলাম জানান, তার তিন বিঘা জমির গম সম্পন্ন ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। শিলা বৃষ্টিতে ক্ষতির মুখে। বাজুবাঘা, গড়গড়ি, পাকুড়িয়া, মনিগ্রাম, বাউসা, আড়ানী ইউনিয়ন ও বাঘা, আড়ানী পৌরসভার ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকরা করছেন বিলাপ। এছাড়া শিলা বৃষ্টিতে উপজেলার অধিকাংশ এলাকায় আমের কড়ালী ঝরে পড়েছে। ভুট্রা,ধান ও গম হেলে পড়েছে। এসব গ্রামের অনেকের বাড়ির টিন শিলার আঘাতে বিনষ্ট হয়েছে।
বাঘা কৃষি কর্মকর্তা শফিউল্লা সুলতান বলেন, আকস্মিক শিলা বৃষ্টিতে রবি ফসলের ক্ষতি হওয়ায় সম্ভাবনার সত্যতা স্বীকার করলেও তাৎক্ষণিকভাবে ক্ষতি পরিমাণ জানাতে পারেন নি। তবে তিনি আরো বলেন, কি পরিমাণ জমির ফসল ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে তা নিরুপণে তিনিসহ অন্যান্য কর্মকর্তারা মাঠে রয়েছেন। বাঘাতে মৌসুমের প্রথম এই ঝর ও শিলাবৃষ্টিতে আমের কড়ালির ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। ঝরে পড়েছে অসংখ্য আম ও পেঁয়াজ, রসুন,গম, এতে হতাশায় পড়েছেন চাষিরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *