পুলিশ কমিশনারের সাথে আরএমপি’র অপরাধ বিভাগসমূহের মধ্যে স্বাক্ষরিত হলো বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি (APA) ২০২২-২০২৩

আজ রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনারের সাথে চারটি অপরাধ বিভাগের মধ্যে বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি (APA) ২০২২-২০২৩ স্বাক্ষরিত হয়।

২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত বাংলাদেশ, টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট (SDG) বাস্তবায়নের লক্ষে বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক প্রনীত কর্মসূচীর অংশ হিসেবে আজ ৫ জুন ২০২২ রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশের চারটি অপরাধ বিভাগ-বোয়ালিয়া, মতিহার, শাহমখদুম, কাশিয়াডাঙ্গার সাথে আরএমপি’র বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি (APA) স্বাক্ষরিত হয়। উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশের সম্মানিত পুলিশ কমিশনার জনাব মো: আবু কালাম সিদ্দিক মহোদয়। প্রাতিষ্ঠানিক দক্ষতা বৃদ্ধি, স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা জোরদার করা, সুশাসন সংহতকরন, সম্পদের যথাযথ ব্যবহার নিশ্চিতকরণের মাধ্যমে রূপকল্প-২০৪১ এর যথাযথ বাস্তবায়নের লক্ষ্যে বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি স্বাক্ষরিত হয় ২০২২-২০২৩।

আরএমপি সদরদপ্তর কনফারেন্স রুমে দুপুর ২.১৫ টায় আরএমপি’র সম্মানিত পুলিশ কমিশনার জনাব মো: আবু কালাম সিদ্দিক মহোদয়ের সাথে চুক্তি স্বাক্ষর করেন, উপ-পুলিশ কমিশনার (বোয়ালিয়া) জনাব মো: সাজিদ হোসেন, উপ-পুলিশ কমিশনার (শাহমখদুম) জনাব মুহাম্মদ সাইফুল ইসলাম, উপ-পুলিশ কমিশনার (কাশিয়াডাঙ্গা) জনাব বিভূতি ভুষণ বানার্জী এবং উপ-পুলিশ কমিশনার (মতিহার) জনাব মো: মনিরুল ইসলাম ।

চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (প্রশাসন) জনাব মো: সুজায়েত ইসলাম এবং বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি( APA) এর ফোকাল পয়েন্ট কর্মকর্তা অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (সদর) জনাব মো: গোলাম রুহুল কুদ্দুস-সহ আরএমপি’র ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ।

বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি (APA) এর লক্ষ হচ্ছে সরকারি কর্মকান্ডের স্বচ্ছতা ও দায়বদ্ধতা  বৃদ্ধি, সম্পদের যথাযথ ব্যবহার নিশ্চিতকরণ এবং প্রাতিষ্ঠানিক সক্ষমতা উন্নয়ন করা। এ চুক্তিতে ৪ টি অপরাধ বিভাগের কৌশলগত উদ্দেশ্যেসমূহ, এসকল কৌশলগত উদ্দেশ্যে অর্জনের জন্য গৃহিত কার্যক্রম এবং এসকল কার্যক্রমের ফলাফল পরিমাপের কর্মসম্পাদন সূচক ও লক্ষ্য মাত্রাসমূহ উল্লেখ রয়েছে।