পাবনার চাঞ্চল্যকর অটোরিকসা চালক সেলিম হত্যার রহস্য উদঘাটন এক নারীসহ গ্রেফতার- ৫

পাবনা প্রতিনিধি: পাবনার সাঁথিয়া উপজেলার চাঞ্চল্যকর ব্যাটারী চালিত অটোরিকশা চালক সেলিম হোসেন (২৫) হত্যার রহস্য উদঘাটন করেছে পুলিশ। একই সাথে ঘটনার সাথে জড়িত এক নারীসহ পাঁচজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।
মঙ্গলবার দুপুরে পাবনার পুলিশ সুপার কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে সংবাদ সম্মেলনে ঘটনার বিস্তারিত জানান পুলিশ সুপার মহিবুল ইসলাম খান।
গ্রেফতারকৃতরা হলেন সাঁথিয়া উপজেলার ছোন্দহ এলাকার আবু সাঈদ মোল্লার ছেলে রাসেল হোসেন (২২), বহলবাড়িয়া পূর্বপাড়া গ্রামের সোলেমান শেখের ছেলে রানা শেখ (২১),একই এলাকার আল আমিনের স্ত্রী শীলা খাতুন (২১), ওয়াজেদ সরদারের ছেলে হোসেন আলী (১৮) ও আতাইকুলার বৃহস্পতিপুর গ্রামের মৃত রায়হান উদ্দিনের ছেলে ছিনতাইকৃত অটোরিকসার ক্রেতা দেলোয়ার হোসেন (৩৮)।
পুলিশ সুপার জানান, গ্রেফতারকৃত সবাই নিহত ব্যাটারী চালিত অটোরিকশা চালক সেলিম হোসেনের পূর্বপরিচিত।  নিহত সেলিম গ্রেফতারকৃত শীলা খাতুনকে মাঝে মধ্যে উত্যক্ত করতো এবং কুপ্রস্তাব দিত। বিষয়টি শীলা তার স্বামী আল আমিনকে জানালে গ্রেফতারকৃতরাসহ কয়েকজন গেল ৯ জুন দুপুরে আল আমিনের বাড়িতে বসে অটোরিকশা চালক সেলিমকে হত্যার পরিকল্পনা করে।
পরিকল্পনা অনুয়ায়ী আসামীরা ৯ জুন বিকালে রিজার্ভ ভাড়ার কথা বলে পূর্বপরিচিত অটোরিকশা চালক  সেলিমকে মাহমুদপুর বাজারে আসতে বলে। সেলিম আসলে আসামীরা অটোরিকশা নিয়ে বিভিন্ন স্থানে ঘুরা ঘুরি শেষে বহালবাড়ীয়ার কালুকাটা নির্জন স্থানে পৌঁছে সেখানে সেলিমসহ আসামী চারজন গাঁজা সেবন করে।
রাত ৯টার দিকে অটোচালক সেলিম নেশাগ্রস্থ হয়ে পরলে আসামীরা সেলিমকে কুপিয়ে ও পিটিয়ে হত্যা করে।
হত্যার পর রাতেই তারা ব্যাটারী চালিত অটোরিকসাটি আতাইকুলা বাজারের ভাংরি ব্যবসায়ী দেলোয়ারের কাছে সাড়ে ৩১ হাজার টাকায় বিক্রি করে টাকা নিজেদের মধ্যে ভাগ করে নিয়ে বিভিন্ন স্থানে পালিয়ে যায়।
ঘটনার পর পুলিশ তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় ১২ জুন ঢাকার ধামরাই নওগাঁ বাজারের বক্কারের ইট ভাটা থেকে রাসেল ও রানাকে আটক করে। পরে তাদের দেওয়া তথ্যর উপর ভিত্তি করে শীলা খাতুন, হোসেন আলীকে আটক করে ও আতাইকুলা বাজারের ভাংরি ব্যবসায়ী দেলোয়ারের দোকানে অভিযান চালিয়ে ব্যাটারী চালিত অটোরিকসাটি উদ্ধার করে ও দেলোয়ারকে আটক করে। আটককৃতদের সেলিম হত্যা মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *